নোবেলালাপ ২০১৪

দুনিয়ার তাবৎ মানুষেরই দিলে বোধকরি নোবেল নামক পুরষ্কারটি পাইবার লুকায়িত খায়েশ রইয়াছে । এইটি আসলেই একখানা খুবই আকর্ষনীয় ও সম্মানের প্রাপ্তি । তবে ইহা বোগলদাবা করা ঠিক সহজ কোন কর্ম নয় ।

পদার্থবিজ্ঞান, চিকিৎসা বা রসায়নে ইহার অর্জন করিতে যারপরনাই খাটুনি ও মেধার খরচ করিতে হয় । সাহিত্যের ব্যাপারটি আমার ঠিক বোধে আসে না । বিজ্ঞানের গুণনত মাণ একই মাপকাঠিতে মাপা গেলেও দুনিয়ার তাবৎ ভাষার সকল সাহিত্য কিরূপে পাশাপাশি মাপা যাইতে পারে? অর্থনীতিতে নোবেলের সম্মানে যেই পুরষ্কারটি দেয়া হয় তাহাও সহজ কম্ম নয় ।

পুরষ্কার হিসেবে নোবেলকে সর্বোচ্চ সম্মানের ধরা হয় । কিন্তু এইটে জ্ঞানের সব বিভাগের জন্য প্রচলিত নয়; এবং জ্ঞান-বিজ্ঞানে অবদানের জন্য নয় বরং মানবকল্যানে প্রত্যক্ষ অবদান রাখিবার জন্যই এইটি দেয়া যায় । অথচ, বিজ্ঞানের অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজের প্রত্যক্ষ মূল্যায়ন তাৎক্ষণিক হয় না । একারনেই, আইনস্টাইনের সবচে গুরুত্বপূর্ণ কাজ আপেক্ষিকতার তত্ত্ব নিয়ে হইলেও তাঁহাকে পুরুষ্কৃত করা হইয়াছে ফটোইলেক্ট্রিক ইফেক্টের জন্য । অনেক ব্যাক্তি আছেন, যাহাদের কর্ম অনেক গুরুত্বপূর্ণ হওয়া সত্ত্বেও নোবেল দিয়ে তাঁহাদিগকে সম্মানিত করা যায় নি ।
তবে, বিভিন্ন শাখায় নোবলের ন্যায় সর্বোচ্চ সম্মানের আর কিছু পুরষ্কার প্রচলিত আছে । যথাঃ- ট্যুরিং অ্যাওয়ার্ড, ফিল্ড্‌স মেডেল ইত্যাদি ।

যাহা হৌক, শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার প্রাপ্তি নিয়ে সবসময়ই সকলেই নানাবোধ প্রশ্ন করিয়া আসিয়াছে । অনেকেই ইহাকে রাজনৈতিক হাতিয়ার ও কৌশলের অংশ বলিয়া মনে করিয়া থাকে ।

বাঙালির পরশ্রীকাতরতা নতুন নয় । রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সাহিত্য নোবেল লাভকে প্রশ্ন করিয়া অনেকে কহে, ‘নজরুল কেন পাইল না’! ইহা সঠিক যে, রবি ঠাকুর পাইলে নজরুলও পাইবার যোগ্য; আমার মতে হুমায়ূন আহমেদও । কিন্তু সকল যোগ্য ব্যক্তিই আসলে পুরুষ্কারটি পান না; কিন্তু যাহারা পাইছেন তাহারা কিন্তু কম শ্রদ্ধেয় নন, কম যোগ্যতার নন । কয়েক বৎসর পূর্বে, ব্যাংকার ড. মুঃ ইউনুস শান্তিতে নোবেল পাইলে বাঙালি তাঁহাকে সম্মাননা জানানো দূরে থাক, বরং তাহাকে নাস্তানাবুদ করিতে ছাড়ে নাই । মালালা নোবেল পাওয়াতে সকলেরই চোখ টাঁটাইবে, এতে আর সন্দেহ কী?

তবে আমার কথা হইল, গালমন্দ না করিলেই নয় কি? আপনি তো এমনিতেই শান্তিতে নোবেলকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না ।

পরিশেষে বলিবঃ বাঙালির প্রতিবছরই “অশান্তিতে কদবেল” মেডেল লাভ করা উচিৎ ।

Advertisements

চলতি পাঠ – ২

কিছুকাল যাবৎ মন বিশেষ ভালো নহে । গেল বৎসর শরতে, চাকুরি ছাড়িয়া উচ্চতর ডিগ্রি লাভের আশায় স্বদেশ ছাড়িয়া পশ্চিমা মুলুকে আসিয়াছি; প্রথম প্রথম নূতন নূতন সকলি ভালো লাগিতেছিল । কিন্তু দিনে দিনে যেন দেশ হইতে দূরত্ব কেবলি বাড়িতে থাকিল আর বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়-পরিজনের নৈকট্যলাভের সাধ জ্যামিতিক হারে বাড়িতেই থাকিল । গত দু-তিন সপ্তাহে মিডটার্ম চলিতেছে, অর্থাৎ পরীক্ষা চলিতেছে; পরীক্ষা জীবনে কোনকালেই মনপূত হয় না – তবে পরীক্ষা লইয়া অনুযোগ আর বিরাগ হওয়াও আমার স্বভাব নহে । কিন্তু, বাঁধ সাধিতেছে বন্ধুত্বের অভাব । যেকালে, কুয়েটে পড়িতাম সেকালে চারিদিকে বাস করিত নানাবর্ণের বন্ধুবান্ধব, এখন তাহা নাই । গোটা স্টোনিব্রুকে (আমার যেখানে বাস ও পাঠ) বাংলাদেশি স্নাতক শিক্ষার্থী আছি আমরা হাত গুণতি বারো তের জন । শিক্ষাজীবনেই কহ আর চাকুরি জীবনেই কহ, আড্ডাবাজি আমার রন্ধ্রে রন্ধ্রে । দেশ, কাল, জাতি, খেলা ইত্যাদি লইয়া মন খুলিয়া আড্ডাবাজি করাটাই আমার জীবনের লক্ষ্য বলিয়ে প্রতিভাত হইত ।

যাহা হৌক, কিছুকাল ধরিয়া দেশ, জাতি, ক্রীড়া ইত্যাদি লইয়া নানাকিছুই আমাকে সম্যক পীড়া দিতেছে । দেশ লইয়া হতাশা ব্যক্ত করিতে কাহারো ভালো লাগে না, আমার তো নহেই । তবুও, দেশের কতিপয় নয় বরং অনেক কিছু লইয়াই আমি চিন্তিত । আজিকে, বাংলাদেশ স্বাধীনতা ঘোষণার ৪৩ বর্ষ পূর্ণ করিতে যাইতেছে । আমি যখন বৈদেশে আসি, সেকালে দেশে চূড়ান্ত রাজনৈতিক অস্থিরতা চলিতেছিল; এই বৎসরের শুরুতে তাহা স্তিমিত হইলেও সমস্যা যাহা ছিল তাহার কোন সমাধান সাধিত হয় নাই । দেশের প্রধান বিরোধী দল, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে নাই; আজিকাল ফেসবুক ব্যাতীত আর কোথাও তাহাদের এমনকি চিহ্নও খুঁজিয়া পাওয়া যাইতেছে না । দেশে, একই দল, পরপর দুই সংসদে সরকার গঠণ করিয়াছে, দেশের উন্নতি, প্রগতির ধারা ধরিয়া রাখিবার জন্য ইহা খুবই সহায়ক । চিন্তিত হইতেছি ইহা ভাবিয়া, যে দেশে যে সংসদ সরকার গঠন করিল তাহা তেমন কোন ভোটই অর্জন করিল না; এবং তাহা লইয়া জনগণের তেমন কোন উচ্চবাচ্য নাই । ইহাতে, একটি জিনিসই প্রতীয়মান হয়, আর তাহা হইল, আমরা যতই দেশ দেশ করিয়া থাকি না কেন, আদতে জাতি হিসেবে আমরা দেশসচেতন নহ । দেশের সরকার কি করিবে তাহা লইয়া আমরা কালেভদ্রে ম্যাৎকার করিলেও আসলে দেশ লইয়া আমাদিগের তেমন কোন পরোয়া নাই । চারদশক পার করিয়া আমরা একটি দেশে বসবাস করিতেছি, যাহাতে গণতন্ত্র ঠিকমত প্রতিষ্ঠা পায় নাই । ইহা মানিয়া লইলাম; কিন্তু পীড়িত হই তখন, যখন দেখি আমাদিগের অর্থনৈতিক কাঠামো খুবই পর্যদুস্ত । আমাদিগের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যাহাকিছু আছে সকলি ভোগকেন্দ্রিক, উৎপাদন কেন্দ্রিক নহে । শুধু তাই নহে, দেশের অবস্থাও খুব বিনিয়োগবান্ধব নহে । উৎপাদন না হইলে দেশের সম্পদ কেবলি কমিতে থাকিবে আর দেশের উন্নতি ধূসর থেকে ধূসরতর স্বপ্নে পরিণত হইতে থাকিবে ।

দেশ লইয়া বিশেষ আমোদিত হইতে পারিতেছি না বলিয়া কিয়দকাল ধরিয়া ক্রিকেট ম্যাচসমূহ দেখিতেছি, যদি তাহাতে কিছু আনন্দলাভ হয় । কিন্তু তাহাতেও বিধিবাম । প্রথম এশিয়া কাপে, কোন ম্যাচ জিতিতে পারিলাম না, এমনকি সহজসাধ্য আফগানিস্তানের নিকটও হারিয়া টুর্নামেন্টে কোন ম্যাচ না জিতিবার অসাধারণ রেকর্ড গড়িলাম । ভাবিলাম, যাহা হৌক এই টুর্ণামেন্ট হইতে শিক্ষা লইয়া টি২০ তে ভালো করিব । সেক্ষেত্রেও আবারো হংকং এর নিকট পরাজিত হইয়া, কোয়ালিফাইং রাউন্ড খেলিবার প্রয়োজনীয়তা প্রমাণ করিয়া কোনরকমে মূল রাউন্ডে উঠিলাম বটে; প্রথম ম্যাচে আজিকে যাহা খেলিলাম তাহাতে মন বিষাদগ্রস্ত না হইবার কোন কারন খুঁজিয়া পাই না । দেশে থাকিলে, কতিপয় বন্ধুবান্ধব লইয়া কিয়দক্ষণ মাতম করিতাম – এইখানে তাহা হইলো না ।

চলতি কথন যেহেতু লিখিতেছি, চলতি আলোচ্য জাতীয় সঙ্গীতের রেকর্ড লইয়াও কিছু কথা উল্লেখ না করিলেই নহে । ছোটকালে যখন স্কুলে যাইতাম, আর প্রতিদিন প্রাতে শ্যামল ঘাষের মোলায়েম মাঠে “আমার সোনার বাংলা” গাহিয়া উঠিতাম, আর সকলের সুরের মধ্যে আমার সুরহীন গীতি হারাইয়া যাইত, আর সঙ্গীতের অনাবিল সুরে মনখানা নাচিয়া উঠিত । কিন্তু, লক্ষ মানুষ একত্রিত হইয়া গাহিলে কী এমন লাভ সাধিত হইবে, এবং তাহা করিতে কেন অর্ধশতাধিক কোটি টাকা খরচ হইবে তাহ বুঝিতে পারি না । আয়োজনের নানাবিধ সমস্যা আর দেশপ্রেমের চাকচিক্যসার প্রদর্শণ লইয়া দেশের মানুষের নানাবিধ আপত্তি ও আলোচনায় চাপা পরিয়া জাতীয় সঙ্গীত সম্ভ্রম হারাইতেছে । মনখুলিয়া গান গাইবার যে আত্মপ্রসাদ তাহার বানিজ্যিকরণের এই বোধকরি সমস্যা ।

কিয়দকাল পূর্বে মালয়শিয়ান এয়ারের একখানা বিমান হারাইয়া গেল । ইহার সন্ধান নিশ্চিত হওয়া পর্যন্ত জনমনের ন্যায় আমারও প্রশ্ন ছিল বিমানখানি গেল কোথা’! । গতকাল যখন শুনিলাম ইহা ভারত মহাসাগরে বিলীন হইয়াছে, প্রথমবারের মত মনে হইল, কয়েকশত মানুষ মারা গিয়াছে ও তাহাদিগের সলিল সমাধি হইয়াছে । সকলের আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করিতেছি । আমার জানামতে, কোন পরিচিতজনের আত্মীয় তাহাদিগের মধ্যে ছিল না । কিন্তু আমাদিগের পরিচিতজন কেহ থাকিতেও পারিত ।

সকলকে মহান স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা ও এই দিবস উপলক্ষ্যে দেশের সর্বোত মঙ্গল কামনা করিয়া আজিকার মতন ইতি টানিতেছি ।

চলতি পাঠ ১

পাঠকসকল! সাধুবচনে বহুকাল পরে আবারো স্বাগতম; আজিকের লেখ্য “চলতি পাঠ” । নামে এই প্রকাশমাধ্যম সাধুবচন, ইহাতে যা লিখিত হয় সকলি সাধুজনের ভাষ্যে বঙ্গীয় ভাষার সাধু রূপে, তাই এই রচনার শিরোনাম চলতি পাঠ হইলেও ইহা চলিত ভাষায় লিখিত হইবে এইরূপ ভাববার অবকাশ নাই । চলিত ভাষা, আরও সঠিকভাবে বলিলে চলিত ভাষার নানারূপে আমরা বাঙালিরা কথা বলিয়া থাকি । একদা প্রমিত সাধু ভাষায়ই সর্বত্র লেখা হইতো, আজিকে ইত্তেফাক নামীয় সংবাদপত্রেও আর সাধুভাষার ব্যবহার প্রত্যক্ষ হয় না ।

পরিতাপের বিষয় এই যে আমরা, বাংলা ভাষাভাষীগণ, সাধুভাষায় আজ আর বিশেষ আরাম অনুভব করি না । সকেলই “ইংলিশ আন্‌ডারস্ট্যান্ড, নো প্রবলেম হ্যাস্‌” আর “উর্দু হিন্দি ভি কাফি আচ্ছা তারিকা সে সামঝতে হ্যায়” কিন্তু বাংলা ভাষার সাধু রূপ দেখিবামাত্র তাহাদিগের নিকট ইহা হিব্রুভাষার ন্যায় প্রতিভাত হয়, যেন ইহা কস্মিনকালেও মানুষের বোধগম্য নহে! যদিওবা এই কালেও হিব্রুভাষার বহুৎসকল ব্যবহারকারী আছেন এবং তাহারাও মানুষও বটেন, তথাপি… । এই নাহয়, গেল লেখ্যরূপ সাধুভাষা – আয়াশে বোধহম্য নহে! আমাদিগের কখনো কখনো বা বাংলাদেশে ব্যবহৃত কিছু কথ্যভাষার রূপ বুঝিতেও সমস্যা হইয়া থাকে। উদাহরণ হিসেবে আসিতে পারে, শ্রীহট্ট তথা সিলেটের ভাষা – যদ্যপি, ইহাকে ঠিক বাংলা ভাষার উপভাষা বলা যায় না, নিজ গুণে ও মহিমায় এই ভাষারূপের রহিয়াছি স্বতন্ত্র রূপ, স্বাদ, গন্ধ, রহিয়াছে নিজস্ব শব্দরাজি, নিজস্ব বাক্যরীতি; তাই ছিলটি ভাষা ভাষাতাত্বিক বিচারে একটি স্বতন্ত্র ভাষার মর্যাদা পায় ও এক কোটির অধিক ভাষাভাষী লইয়া দুনিয়ার ৭৯তম বৃহত্তম ভাষারও মর্যাদা পাইয়া থাকে । উল্লেখ্য যে, প্রাচীন বাংলায় যেকালে বাংলা কি লিপিতে লেখা হইবে তাহার মান নির্ধারিত হয় নাই, তৎকালে সিলটি নাগরী লিপির উদ্ভব হয় ও ষোড়শ হইতে বিংশ শতাব্দীতে বিভিন্ন লোকসাহিত্যের লেখ্য বাহন হিসেবে এই লিপির ব্যবহার হইতে থাকে । সিলটি নাগরী লিপির প্রসার ও ঐতিহাসিক মর্যাদার কারনে উইনিকোডেও এই লিপির স্থান রইয়াছে । সিলটি ভাষার সহিৎ, একইভাবে চাটগাঁইয়া বুলি তথা চট্টগ্রামের কথ্য ভাষার নাম উল্লেখ করিতে হয় । যদিওবা, চাটগাঁইয়া বুলি কেবলি কথ্যভাষা রূপেই ব্যবহৃত হয় ও অতি প্রাচীন কাল হইতেই চট্টগ্রামের সাহিত্যিকগণ বাংলা ভাষাতেই সাহিত্যচর্চা করিয়া আসিয়তেছেন ।

যাহা হৌক, আলোচ্য বিষয় মূলত, চলতি ঘটনা । আজিকাল দেশে ও বিশ্বে অনেক ঘটনাই চলমান আর অনেক ঘটনাই পত্রপত্রিকা, ইন্টারনেট, টিভিচ্যানেলে ভাসমান, দৃশ্যমান, বিবদমান । বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে অবশ্যই আজিকে সবচেয়ে আলোচিত ও সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপ্রাপ্ত ঘটনা চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীর বিচারে লঘু সাজা দান ও তার প্রেক্ষিতে পূর্ণ শাস্তির দাবীতে শাহবাগের মোড়ে প্রতিবাদ সমাবেশ । দশ পনেরজনের থেকে শুরু সেই প্রতিবাদ বিসংবাদ নিমিষেই লাখো মানুষের গণসমাবেশে পরিণত হয়, গনজোয়ারের মতোই; সুখের বিষয় এই সুবিশাল যজ্ঞে কেউ যখন পরিশ্রান্ত হইয়া কিয়দকাল অবসর লইতেছে সেই অবকাশে আরো শত মানুষ জমা হইতেছে; কেউ উপস্থিত না হইতে পারিলে খোমাখাতা তথা ফেসবুক যোগে নিজ নিজ সম্পৃক্ততার কথা উল্লেখ করিতেছে, দেশে বিদেশে শাহবাগের মতই আরো অনেক স্থানে একই দাবিতে তাহারা উপস্থিত হইতেছে । এইরূপ আবেগপ্রবণ বাঙালির সার্বজনীন সম্পৃক্ততাপূর্ণ উদ্যোগ কালে কালে দেখা গিয়াছে; এই আবেগের যে মূল চালিকাশক্তি, যে মূল প্রেরণা, যে স্বপ্ন তাহা ধরিয়া রাখিতে হইলে আনাগত ভবিষ্যত লইয়াও সুচিন্তিত উদ্যোগ লইতে হইবে ।

এখন ফাল্গুন মাস, চারিদিকে গাছে গাছে পাতা গজাইতেছে – কিশোরকালের রচনার ন্যায় এই কথা লিখিতে পারিতাম; সমস্যা যা হইতেছে তাহা হইলো চারিপাশে গাছ খুজিয়া পাওয়া দুষ্কর বলিয়াই পাতা গজাইতেছে কি না তা প্রত্যক্ষ করিতে পারিতেছি না । তথাপি, রিকশায় রিকশায়, বোটানিকালে-রমনায়, খাবার রেস্তোঁরায়, আনাচা কানাচে, চিপায় চাপায় আমরা দেখিতে পারিতেছি যুগলবন্দীর মহোৎসব । পহেলা ফাল্গুন বাঙালির ঐতিহ্যবাহী প্রকৃতিপ্রেমী উৎসবে বাসন্তী রঙে ললনাদের সাথে প্রেমপিয়াসী নানা বয়সের সাবালক ঘুরিতে বাহির হইয়া থাকে এই দিনে; আমি এই দিনেও প্রভাতেও বিগত মাঘের সকল সকালের ন্যায় শয্যাত্যাগ করিয়া ক্লান্তিমগ্ন অফিসের কর্মযজ্ঞে দিনাতিপাত করিয়াছি আর দিবসপ্রান্তে একইরূপেই বাসে নিদ্রাযাপন করিতে করিতে গৃহে ফিরিয়া আসিয়াছি । ইহার পরেরদিন, ২রা ফাল্গুন – গিফট ব্যবাসয়ীদের প্রচারে বিশেষ প্রসারপ্রাপ্ত ভ্যালেন্টাইন দিবস বা ভালোবাসা দিবস উদযাপিত হয় । এইদিনে বিশেষ পাওনা, কপোত-কপোতীর ঝাপাঝাপির দরূন রাস্তায় জ্যামের আধিক্য আর হৃদয়ে-হৃদয়ে টানাটানি প্রকাশের চাপে পিষ্ট হইয়া পুষ্পরাজির অকাল মরণ; পুষ্পসকলের এই মরণে হাত পা ফুলিয়া কলাগাছ, তালগাছ, বটগাছ হইয়াছে অনেক ফুলব্যবসায়ীর । যে গোলাপ ৫ টাকায় বিকোতে চায়না, এইদিনে তাহাই পঞ্চাশ টাকায় পাইলে ক্রেতাগণ লড়াইয়ে অবতীর্ণ হয়, কে লইবে সে গোলাপ, প্রেয়সীকে দেবার প্রত্যাশায় । ফাল্গুন – চৈত্র দুমাসকেই পঞ্জিকায় বসন্ত বলা হইলেও প্রকৃত বসন্ত যেন কেবলই এই ফাল্গুন । এই একমাসেই তাই বাঙালির মাঝে প্রেম, পিরিতী, পরিণয় বাড়াবাড়ি রকম বাড়িয়া যায় । খোমাখাতায় বন্ধুবান্ধবের সখীবন্ধন আর প্রেমের আলাপন বহুগুণে টাইমলাইনে আর হোমপেজে দৃষ্ট হইতে থাকে । পাশাপাশি পরিণয় অনুষ্ঠানাদিও পাড়ায় পাড়ায় বড় বেশি করে চক্ষুগোচর হইতে থাকে । কার্ত্তিকে অনেক প্রাণীর যুগলবন্ধনের তোড় বাড়িয়া থাকে । প্রকারান্তরে, সৌন্দর্যপিপাসু মানুষের কামনার সময় এই বসন্তেই আসিয়া থাকে । এইকালে, কোন কোন একাকী তরুণের আর তরুণীর পুষ্পহীন বসন্ত কাটিতে থাকে অনেকের পুষ্পসমাহারে জর্জরিত বিয়ের আসর আর প্রেমের পসরা দেখিতে দেখিতে; এক ফাল্গুন তাহাদের শেষ হয় পুষ্পহীন আরেকটি ফাল্গুন না আসিবার কামনায় । অন্যদিকে, নির্দয় পরিহাস ও প্রকৃতি তাহাদের জন্য আরো একখানা পুষ্পহীন ফাল্গুন প্রস্তুত করিতে ব্যস্ত হইয়া পরে ।

১১ই জৈষ্ঠ্য

আজিকে ১১ই জৈষ্ঠ্য – না ইহা ঠিক করিয়া নজরে আসে নাই, জানিতাম আজ ২৫ মে; আশ্চর্য! অথচ আজ কি না প্রিয়কবি নজরুলের জন্মবার্ষিকী ।

বিদ্রোহী কবি, জাতীয় কবি, প্রেমের, রূপ রস, খেয়ালের কবি, গীতিকার, সুরকার, সম্পাদক, দেশপ্রেমে বলীয়ান সৈনিক, স্বাধীনচেতা ঝাকড়া চুলের বাবরি দোলানো মহান পুরুষ আমাদের এই প্রিয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম । তিনি জাত কবি, আজন্ম কবি । কাব্যের ছন্দ, সুধা রূপ সুর, চরন-বলন, কাঠামো-গঠন সকলকিছুই যেন তাঁহার রন্ধ্রে রন্ধ্রে বহমান লীন । তিনি কাব্য রচনা করতেন যেন বাঁচিয়া রহিতে, মানবদেহ যেমন শ্বাস লইতে না পারিলে থাকিতে পারে না তেমনি কাব্যে না মজিলে জাত কবির মন টিকিতে পারে না । তাই শৈশব হইতেই তাহার কাব্যে বসবাস । বাংলার পাশপাশি আরবি ফারসি নানা ভাষায় কাব্যসুধা আস্বাদন করিতে করিতে তিনি লিপ্ত হন নবতর বাংলা কাব্য সৃজনে । অসাধারণ তাহার কাব্যবোধ, অপরূপ তাহার উপমা, আরও অভিনব তাঁহার শব্দচয়ন – সবমিলাইয়া তার রূপায়ন এমনই সব কাব্যের জন্মদান করিয়াছিল যে সেসকল পদ্য কাগজ কলমের, শব্দ অক্ষরের থর-বিথর হইতে অবিরল শব্দে-নৈঃশব্দে ওষ্ঠ্য-কণ্ঠ পার করিয়া হৃদয়ে, মননে পৌঁছুতো লক্ষ-শত বাঙালির শোণিতে তুফান তুলিয়া, চিন্তায় অনুরণন ঘটাইয়া — এমনি চমকপ্রদ তাহার কর্ম । সহজ সরল শিশুতোষ কবিতা (আমার নাম “সাধ” শিরোনামেও একখানা কবিতা ছিল তাঁহার রচিত, যাহা প্রাথমিক শিক্ষালয়ে পাঠ্যও ছিল আমাদিগের), লিচুচোরের ন্যায় কৌতুকছন্দ, বিদ্রোহের কবিতা, কঠিন প্রেমের কবিতা, গজল, শের, ওমরের অনুবাদ, কোরআনের কতিপয় অনুবাদ এমনকি প্রবন্ধ, কথিকা, ভাষণ — গদ্যে, পদ্যে তার বহুরং একই ছন্দে যেন বাংলা সাহিত্যকে অফুরন্ত এক সম্পদরাজি দিয়া গিয়েছে; সাথে যু্ক্ত হইয়াছে তাঁহার রচিত ও সুরপ্রথিত সঙ্গীতসম্ভার ও কতিপয় রাগ ।

সকলই মিলিয়া, কবি নজরুল বিবিধ রূপ লইয়া পরিপূর্ণ এক কবি; আমাদের প্রিয় কবি – বাংলাদেশের জাতীয় কবি । আজিকে তাহার জন্মদিবসে একটুকু কেবলি শ্রদ্ধার, ভালোলাগার নিবেদন ।

সালতামামিঃ ২০১১পাঠ

দুই সহস্র একাদশ সাল — খৃষ্টীয় অব্দের ২০১১তম বৎসর; বহুকাল ধরিয়া এই সালগণনা পদ্ধতিকে অ্যানো ডোমিনি বা “প্রভু’র বৎসর” বলিয়া আসিতেছি, কিন্তু অধুনা ইহাকে কমন এরা বা “সাধারণ সাল” বলিবার চল হইয়াছে – কারন এইটিই সর্বধিক ব্যবহৃত পঞ্জিকা-বৎসর যা একসময় কেবল চার্চ-শাষিত বা খৃষ্টানপ্রধান য়্যুরোপে ব্যবহৃত হইলেও এখন ধর্ম ও জাতি নির্বিশেষে তাবৎ দুনিয়াতেই ব্যবহৃত হইতেছে ; ডিজিটাল ব্যবস্থা, কম্পিউটারে, আন্তর্জাতিক মান্য ব্যবস্থায়ও এটিই একমাত্র সর্বজনস্বীকৃত সাল – সেজন্যই কমন এরা ।

যাহাই হৌক, প্রতিবছরের ন্যায় ২০১১-ও অনেক আশা আকাঙ্ক্ষা লইয়া আমাদের মাঝে আসিলেও নানাবিধ প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি নিয়াই এই বছরের সমাপ্তি – তাই বৎসরের শেষ ঘন্টায় বসিয়া (লিখিতে শুরু করিলেও শেষ করিতে পারি পরের দিবসে) ব্যক্তিগত, দেশীয় ও অন্যান্য আঙ্গিকে বৎসরটির কিছু দিক ফিরে দেখিতে উদ্যত হইলাম ।

ব্যক্তিগত পর্ব
২০১১ সাল আমার জীবনে মাইলফলক বৎসর না হইলেও বেশ কিছু ঘটনায় আলোকিত – গতবৎসরের শেষে পাসপোর্ট সংগ্রহের আবেদন করিলে মাত্র দুই কি তিন মাস অতিক্রান্ত না হইতেই এবৎসর জানুয়ারিতে আমি বাংলাদেশের পাসপোর্ট হাতে পাই । এই বৎসরেই আগস্টের শেষে আমি কর্মক্ষেত্রের প্রয়োজনে স্যামসং সদরদপ্তর – কোরিয়াতে দুই মাসের ভ্রমণে যাই । তার কিছু পূর্বেই আমি বিশ্বের সকল স্থানের জন্য মুসলিম নামাজাদি, ইফতার-সাহরির সময় গণনা করিবার ওয়েবভিত্তিক ওয়াক্তস্কোপ নামীয় এক বস্তু তৈয়ারি করি – কোরিয়া সফরে ইহা আমারও বিশেষ কার্যে আসে । গ্রীষ্মের শুরুতে আমি আমার ওয়েব সাইটের সহিৎ ওয়ার্ডপ্রেস নামক ওয়েব-প্রকাশনা সহায়ক বস্তুখানি সংযোজন করি এবং সময়ের স্বল্পতা থাকিলেও কিছু থিমও তৈরি করিয়া ফেলি – যার দরুন আমি “সাধুবচন” নামীয় এই খেরোখাতা প্রকাশ করিতে শুরু করিতে পারি; সাধুবচনে মূলত আমি সাধুভাষা চর্চা করিয়া নিজ মনোভাব প্রকাশের চেষ্টা করিতেছি – একই সাথে যাহাতে বাংলাভাষার এই বিশেষ স্বাদুরূপ কালেভদ্রে পঠিত-লিখিত হইয়া জীবিত থাকিতে পারে সেই আশাও প্রেরণার রূপ যুগাইয়াছে । কিছুকাল পর আমার কাব্য-কুকর্মের খাতা “সুলল সংগ্রহ“-ও ওয়েবমাধ্যমে প্রকাশ করিতে শুরু করিয়া দেই এবং সেই আনন্দে ধেই ধেই করিয়া নাচিয়া নতুন কতিপয় কাব্যও (নয়খানা পদ্য ও আষ্টখানা লিমেরিক) রচনা করিয়া বসি – এর পূর্বে প্রায় চারি বৎসর কাল ঠিকমত কাব্যচর্চা করিতেই পারি নাই ।
২০১০ সালে জন্মদিনোপলক্ষে আব্বার নিকট হইতে কম্পিউটারযোগে আঁকিবার জন্য ব্যবহৃত ড্রয়িং প্যাড উপহার পাইলে এই বৎসর তৎযোগে কিছু চিত্রাঙ্কেনরও অবকাশ হয় – তাহা সত্ত্বেও এই বৎসরে মাত্র পঞ্চখানি দেয়ালচিত্র কাস্টোমাইজ.অর্গ-এ প্রকাশ করিতে সক্ষম হই । ইহার মধ্যে অবশ্য একুশে ফেব্রুয়ারী লইয়া বাংলা বর্ণসমূহের সমন্বয়ে কৃত চিত্রখানি বন্ধুমহলে বিশেষ সমাদর প্রাপ্ত হয়। কিয়দ পরেই বাংলা নববর্ষ লইয়া কৃত নববর্ষ শিরোনামের কার্য – ঠিক মনঃপূত না হইলও ইহাও বেশ কদর পাইয়াছে । বিগত বছরের ন্যায় এই বছরেও বারকয়েক গুগল ডুডল বানাইতে ইচ্ছা পোষণ করিলেও আমি, সিয়াম, ফাহিম বা প্রতীকের মধ্যে কেউই কাজটি সম্পন্ন করিতে পারি নাই; পরিশেষে বিজয় দিবস উপলক্ষে দিবসের ২-৩দিন পূর্বে অকস্মাৎ সাইবারজবৎ জুড়িয়া গুগল ডুডল করিবার জোড় তৎপরতা শুরু হইলে আমার এক অনুজ আশিক রহমান অপু আমার একই দিবস উপলক্ষে কৃত বিজয় আনন্দে আজ এর উপর ভিত্তি করিয়া ডুডল প্রস্তাব করে । অতঃপর, সকলেই যখন জানিতে ও বুঝিতে পারে যে ১-২ দিনের মধ্যে কোন রূপেই গুগল ডুডল প্রদান সম্ভব নহে তখন সাইবার জনতা পরবর্তী একুশে ফেব্রুযারীতে অনুরূপ কিছু করিবার আশা প্রকাশ করে… আমি ও প্রতীক এইবার আর অলসতা না করিবার ইচ্ছা প্রকাশ করি ।

জানুয়ারিতে আমার ইংরেজি ভাষার ব্লগখানি ১৫ সহস্র পাঠক ছাড়াইয়া যায় – বৎসর শেষে তাহা চল্লিশ সহস্র-ও ছাড়াইয়া যায় – এবছরের শুরুতেই উক্ত ব্লগখানিকে আমি আমার নিজস্ব ঠিকানা ins.nafsadh.com তে প্রকাশ করিতে শুরু করি যাহা পূর্বে ওয়ার্ডপ্রেস.কমের ঠিকানায় প্রকাশ হইতো ।

এবছর মার্চে আমার সুপ্রিয় পিতামহ অকস্মাৎই পরলোকগমণ করেন, অশ্রুসিক্ত নয়নে তাঁহাকে বিদায় দিয়া আসি ১১ মার্চ তারিখে। তিনি অসুস্থ হইয়া ঢাকায় হাসাপাতালস্থ হইলেও তাঁহার সহিত শেষ দর্শনের সুযোগ হয় নাই – এই ক্লেশ আমার রহিবে। তাঁহাকে হারনোর বেদনা আমাকে ও আমার পরিবারের সকলকে মর্মাহত করে। আল্লাহ তাঁহার আত্মার মাগফিরাত করুন ও তাঁহাকে জান্নাতের উত্তম স্থান দান করুন। আমীন॥

২০১১ সালের কতিপয় ঘটনার মধ্যে এই মূহুর্তে স্মৃত হইতেছে যে, জানুয়ারিতে আমার মাতৃকুলসম্বন্ধীয় ভ্রাতাভগ্নিগণের সহিৎ টাঙ্গাইলে বিশেষ মিলন হয়; এই মাসেই কতিপয় বন্ধুর সহিৎ বানিজ্য মেলা নামের কারবারে আমরা যাই – বন্ধুসহযোগে ইহা আমার প্রথম বানিজ্যমেলা ভ্রমণ, ইতঃপূর্বে পারিবারের সহিত যাওয়া হইয়াছিল – যদিও অধিক জনসমাবেশ আমাকে বিশেষ আনন্দিত করিতে পারে না । ফেব্রুয়ারির বইমেলা বাঙালির বিশেষ আনন্দের উৎস এবং এই বৎসর যথেষ্ট আয়েশের সহিৎ বার কয়েক বইমেলা গমন করিতে পারি – যদ্যপি পূর্বের ন্যায় বইমেলায় ভিড় আর দৃষ্ট হয় না – তথাপি বইমেলা আমার প্রাণের মেলা হইয়াই আসে। ২০১০ সালে পরীক্ষা থাকার দরুন বইমেলায় আসিতে পারি নাই, এবং তার আগের ০৭,০৮,০৯ ও বিশেষ আয়েশের সহিৎ বইমেলা ভ্রমণ হয় নাই। আমরা ইহার মাঝেই “বর্দ্ধমান হৌজ” তথা বাংলা একাডেমি মূল কার্যালয়-ও দর্শন করি । ফেব্রুয়ারিতে আমি অর্ক ও শোভনের সহিৎ প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিন বা নাড়িকেল জিঞ্জিরা’য় অবকাশ ভ্রমণ করি – ইচ্ছা সত্ত্বেও সংবর্ষে এই একের অধিক আর সফরে যাইতে পারি নাই । পঞ্চবৎসর পূর্তি উপলক্ষে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট সিএসই ২কে৫) বন্ধুগণ একত্রে মিলিত হই মার্চের ৫ তারিখে । আমাদিগের পুরুষ বন্ধুগণের মধ্যে সর্বপ্রথম বিবাহের বন্ধনের আবদ্ধ হইল রাহ্‌হ্‌হ্‌ ভাই এই জুন মাসেই । রমাদানের মধ্যখানে হঠাৎ টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হইয়া আমি কিছুকাল হাসপাতালে যাপন করি – এতদহেতু আমাকে স্বীয় উদ্যোগে আয়োজিত বন্ধুসকলের ইফতার খানা-আয়োজন পরিত্যাগ করিতে হয়। সুস্থ না হইতেই আমি কোরিয়া ভ্রমণে চলিয়া যাই । কোরিয়াতে সিউল ও সুওন সংলগ্ন বিভিন্ন স্থান সন্দর্শন হয় ও বিশেষ অভিজ্ঞতা প্রাপ্ত হই । অক্টোবরে স্বীয় ওয়েবগৃহের দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশ করিতে সক্ষম হই । একালেই আমি প্রথম ত্রিমাত্রিক চলচ্চিত্র দর্শনের স্বাদলাভ করি – যদ্যপি মুভিখানার নির্মান বিশেষ প্রসিদ্ধ হয় নাই – তথামি ত্রিমাত্রিক চিত্র বলিয়া কথা । নভেম্বরে আমি আমার আলমা ম্যাতার তথা শিক্ষণমাতৃকা কুয়েট হইতে ঘুরিয়া আসি – উক্ত স্থান আমার নিকট বিশেষ আবেগের স্থান । আমাদিগের সুহৃদ অভি উচ্চশিক্ষার্থে মার্কিন মুলুকে গমন করে বছরের শেষলগ্নে ।ডিসেম্বরে পুনরায় চন্দ্রগ্রহণ সংঘটিত হয় – জুনমাসের চন্দ্রগ্রহণ মেঘরাজিকার হেতু দৃষ্ট না হইলেও এইটি সম্যক দৃষ্ট হয় । এইসকল ব্যতিকরেকেও আরো নানাবিধ ক্ষুদ্র-বৃহৎ ঘটনার দ্বারা পরিবৃত হইয়া বছর যাপিত হইলো… এক্ষণে ইহাকে বিদায় জানাইতেছি ।

দেশ ও বিশ্ব পর্ব
বর্ষটি দেশে ও বিশ্বে নানাবিধ আলোচিত ঘটনার দ্বারা অতিক্রান্ত হয় । জানুয়ারির মাঝামাঝি ফেলানির ঘটনায় সমগ্র দেশ বিক্ষুব্ধ হইয়া বৎসরের সূচনা করে, ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর কতিপয় ঘটনাও প্রভূত আলোড়ন সৃষ্টি করিয়াছিল । ১৭ ফেব্রুয়ারি এক অসাধারণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশ ভারত ও শ্রীলঙ্কার সহিত সম্মিলিতভাবে বিশ্বকাপ ক্রিকেট আয়োজনের শুভসূচনা করে – উদ্বোধন অনুষ্ঠান ভারতের শিধু সিং ও কতিপয় ব্যক্তি ব্যাতীত তাবৎ দুনিয়ায বিশেষ প্রসংশা পায় – লোকে কহিতে থাকে ক্রিকেটে এমন অনুষ্ঠান আর হই নাই। তবে আমরা বিশ্বকাপে দ্বিতীয় পর্যায় (রাউন্ড) এ যাবার আশা করিলেও তাহা হয় নাই – ফলে ক্রীড়ামোদি আমরা বিশেষ আশাহত হই ।
মার্চ মাসে ড. ইউনুস ও গ্রমীণ ব্যাংকের সহিত সরকারি আচরন লইয়া সারাদেশ বেশ চঞ্চল হইয়া উঠে – আদালতের রায় লইয়া বিবিসি মত দেয়, “আদালত যেন শাষকের দর্পন”। বিশ্বের বিভিন্ন স্থান হইতেও এই ঘটনা লইয়া বেশ নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া আসিতে থাকে ।
১১ মার্চে জাপানের সুনামি ও তাহার ফলশ্রুতিতে ফুকুশিমা ট্রাজেডি সমগ্র বিশ্বকে আলোড়িত করে, বিশেষ করিয়া প্রযুক্তিবিদগণ পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রযুক্তিকে আরো গভীরভাবে ভাবিবার অবকাশ পান।
মার্চেই সাংসদ আন্দালিবের বক্তব্য বিশেষ আলোচনার সৃষ্টি করে ও বিভিন্নমাধ্যমে উহার ভিডিওচিত্র অবশ্য দ্রষ্টব্য হইয়া পরে । এপ্রিলে জাতীয় নারীনীতি লইয়া বিশেষ দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয় এবং ইহা লইয়া হরতাল ও বিশেষ রণাবস্থার অবতারণা হয়।
মে মাসে বিশ্ববাজারে তেলের মূল্য ব্যারেলপ্রতি ১০ডলার হ্রাস হইলেও পক্ষান্তরে বাংলাদেশে লিটারপ্রতি দুই টাকা বৃদ্ধি হয় – পরবর্তীতে আরও কয়েক দফা গ্যাস ও তেলের মূলবৃদ্ধি ঘটে; বর্ষের শেষে আসিয়াও তেল লিটারপ্রতি ৫টাকা বাড়ে, গ্যাসের মূল্য ১৬ টাকা হইতে তিনগুণ বাড়িয়া যায় – বিদ্যুৎ ও গৃহস্থলী গ্যাস সরবরাহেরও অবস্থা তথৈবচ । মে মাসের এ সময়েই-ই রবি ঠাকুরের জন্মের দেড়শতবর্ষ জয়ন্তী পালিত হয় এবং এর কিছু পাশ্চাত্যকরণের বিশেষ সমালোচনার সৃষ্টি করে । জুনে ঢাকা ফ্যাশন উইক একাধারে ব্যবসায়িক সাফল্য ও নাগরিক সমালোচনা লাভ করে ।
ভিকারুন্নিসার পরিমল কাহিনী-ই থাকে জুলাইয়ের মূল আলোচনার বিষয় । জুলাইতে আদমশুমারির প্রতিবেদন প্রকাশিত হয় যাহাতে দেশের জনসংখ্যা অনুমিত ও পূর্বের জরিপের তুলনায় কম বলিয়া প্রতিভাত হয় । আগস্ট মাসে, তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীর সহ কিছু খ্যাতিসম্পন্ন ব্যক্তি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হইলে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা লইয়া বিশেষ বিতন্ডা মঞ্চস্থ হয় । এই বৎসর আমেরিকা ও ভারতের মডেল অনুযায়ী বাংলাদেশেও “কে হতে চায় কোটিপতি” শীর্ষক অনুষ্ঠান শুরু হয় বাকের ভাই খ্যাত সাংসদ নূরের উপাস্থাপনায় । অক্টোবরে সাইবার জগতে বাঙালি-বাংলাদেশি প্রশ্ন কিছুটা আলোচনার অবকাশ পায় ও এই লইয়া আমার খেরোখাতায় পূর্বতন লেখাটি লিখিত হয় । পদ্মা সেতু লইয়া বৎসরের শেষদিকে মাঠ উত্তপ্ত হয়। টিপাইমুখি বাঁধ লইয়া সরকারের ভূমিকা প্রশ্ন সৃষ্টি করে নভেম্বর ও ডিসেম্বরেও । পাক-বাংলা ক্রিকেট খেলায় কিছু বাংলাদেশি নাগরিকের পাকি-সমর্থন বিশেষ নিন্দা ও দুশ্চিন্তার বিষয় হইয়া ওঠে এ সময় । বিজয়ের মাসেই মুক্তিযুদ্ধকালে স্বাধীন বাংলাদেশের বিরোধে অবস্থান কারীদের নেতা হিসেবে পরিচিত গোলাম আযমের সাক্ষাৎকার অনেকের আলোচনায় উঠিয়া আসে; যুদ্ধাপরাধের বিচার সহ বেশ কিছু বিষয় এসময় আলোচিত হইতে থাকে।

উত্তাপসৃষ্টিকারী নানা ঘটনার হেতুই বোধ করি, বৎসরের শীত বেশ জাঁকোয়া রূপে আবির্ভূত হইলেও দক্ষিণায়নের দিন হইতেই হঠাৎ করিয়া শীত কমিয়া বেশ গরম অনুভূত হইতে থাকে ।

বাংলাদেশ এ বৎসর রাশিয়ার সহযোগিতায় পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র তৈরির চুক্তি করে আবার রাশিয়ার সৈনিকদের প্রশিক্ষণ দেবার আরকটি চুক্তিও হয়।
২০১০ এ সৃষ্ট পুঁজিবাজার অস্থিরতা ২০১১ জুড়েও চলিতে থাকে ।

বৎসর জুড়িয়া বিশ্বজুড়ে সর্বাধিক আলোচিত বিষয়ের মধ্যে স্থান লইয়াছিল মূলত আরব বসন্ত; এতদ্ব্যাতীত ফুকুশিমা পারমাণবিক কেন্দ্র, স্বর্ণের মূল্য বৃদ্ধি, মার্কিন ডলারের মূল্য বৃদ্ধি, জ্বালানি মূল্যের নিয়মিত হ্রাসবৃদ্ধি ইত্যাদি বিশ্বমাধ্যমে আলোচিত হইয়াছে ।

প্রযুক্তি পর্ব
বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক কোন বহুজাতিক কোম্পানির গবেষণা প্রতিষ্ঠান স্যামসং আরএ্যান্ডডি ফেব্রুয়ারিতে আত্মপ্রকাশ করে – ইন্টেল, এলজি, এএমডি, আইবিএম সহ কতিপয় আরো কিছু প্রতিষ্ঠানের গবেষণাগার খুলিবার প্রচেষ্টার কথাও আমাদের কর্ণগোচর হয় । মাইক্রোসফটের ইমাজিন কাপে এবৎসরই বাংলাদেশ তলিকাভুক্ত হইয়া অংশ লয়, মাইক্রোসফট ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ৬ কে অতিবৃদ্ধ ঘোষণা করিয়া ইহা প্রতিস্থাপনে উদ্যত হয় । এবৎসর এইচটিএমএল ৫ প্রকাশিত হয় ও সকল প্রধান ব্রাউজার নতুন প্রযুক্তির উৎকর্ষে আরও ব্যবহার-মনোহর হইয়া উঠে । এপ্রিল ফুল বা বসন্তের বোকা বানাইবার উৎসবে গুগল এবার সর্বাধিক ধোকা (hoax) ছাড়িয়া বিশেষ খ্যাতি পায়, গুগলের সিইও পদ এরিক স্মিড্থ ছাড়িয়া দিবার পর প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেজ আবারো সিইও হন। গ্রীষ্মেই কিউবি তাহাদের ইন্টারনেট সংযোগের গতি পরীক্ষামূলক ভাবে দ্বিগুণ করিয়া দেয় ও পরে সকলের সংযোগ-গতিকে দ্বিগুণের স্থায়ী রূপান্তরিত করে । বিশ্বের সর্ববৃহৎ অনলাইল ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান জিংগা শেয়ার মার্কেটে প্রবেশ করে । গুগল জুন-জুলাইতে মরিচার ন্যায় লাল বর্ণ ধারণ করিতে শুরু করে ও গুগল প্লাস প্রকাশ করে – যাহা সূচনায় বিশেষ আকর্ষণ সৃষ্টি করিয়া খোমাখাতা ফেসবুককে হূমকির মুখে পতিতে করিলেও বছর শেষ না হইতেই গুগল প্লাস কোনক্রমেই ফেসবুক কে হটাইয়া মূল ধারা হইতেছে না – এইটি প্রতীয়মান হয় । এছাড়া, স্যামসং মোবাইল বিভাগের সফল সিটিও ওমর খান কোম্পানি ছাড়িয়া যান বৎসরের মধ্যদিকে; আগস্টের ৬ তারিখ ওয়েবের ২০ বছর পূর্ণ হয়; দোয়েল নামীয় বাংলাদেশে সংযোজিত ল্যাপটপ বাজারজাত হইয়াছে ২০১১ সালে । ফেসবুক এবর্ষেই তাহাদের প্রোফাইলের নতুন ধারণা টাইমলাইন প্রচলন করে ।
এই বৎসরেই আইবিএম পিসির ৪০ বৎসর পূর্ণ হয় এবং তাহা হইতে না হইতেই এই প্রযুক্তির পুরোযায়ীগণ কর্ম ও বিশ্ব ত্যাগের যাত্রা শুরু করেন । আগস্টে দায়িত্ব ছাড়িবার কিয়দপর অক্টোবরে দুনিয়াও ছাড়িয়া যান কম্পিউটার প্রযুক্তির অন্যতম মহান কারিগর স্টিভ জবস। একই মাসে প্রোগ্রামিং ভাষা সি ও প্রাচীন কম্পিউটার ব্যবস্থার জনক মহান ডেনিস রিচি-ও ইহধাম ত্যাগ করেন।

যাহাই হৌক, অন্যান্য বর্ষের ন্যায় ২০১১ও নানাবিধ ঘটনায় রঞ্জিত হইয়া আমাদের ছাড়িয়া গেলো।

২০১১ শেষ করিয়া ২০১২’র শুরুতেই দুটি দুঃসংবাদ শুনিলাম, এক বর্ষের প্রথম প্রহরে বুয়েটের রণক্ষেত্র হইবার ঘটনাটি জানিলাম – আর সকালের নিদ্রা ভাঙিল একজন সহপাঠী ও সুপ্রিয় বন্ধুর হঠাৎ আমাদের ছাড়িয়া যাইবার ঘটনা জানিয়া । দুইটিই অবশ্য ২০১১ তে ঘটিয়াছে, কিন্তু জানিতে পারি ২০১২তে । সবাইকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানাইলেও তাই কহিতে পারিনা আসলে কিরূপ হইবে এই বর্ষ ।

বাংলাদেশি-বাঙালি প্রশ্নে

আজিকে খোমাখাতায় একখানা প্রশ্নের সম্মুখীন হইলাম; বাঙালি না বাংলাদেশী কোন পরিচয় বেশি গর্বের । উত্তর দিতে গিয়া প্রথমেই মনে আসিল, কেহ জিজ্ঞাসা করিলে, তৎক্ষণে অতিশয় গর্বের সহিতই কহি, বাংলাদেশ হইতে আসিয়াছি আমি ।

বাংলাদেশ শব্দখান অনেকটা আপন গৃহের অনুভূতি দেয় । আবার বাঙালি, বাংলা ভাষাভাষী এইসকল পরিচয়ের রহিয়াছে ভিন্নতর গৌরব-আভিজাত্য ও অনুভূতি ।
ইহা আমাদিগের উৎসের পরিচয় দেয়, ইহা বংশগৌরবের অংশ — কিন্তু ভারতে, আসামে, বিহারে, ত্রিপুরায় ও বাঙালি বাস করিয়া থাকে; ঠোক যেইরূপ ইরাকে, কুয়েতে, মিশরে, কাতারে, সাহারায় সকলেই আরব অথচ তাহাদের পরিচয় ইরাকি, কুয়েতি, মিশরী – ঢালাও ভাবে আরবি নয় । একইরকম, আম্রিকায় অনেক ইংরেজ-বংশধর রহিয়াছে কিন্তু তাহারা ইংলিশম্যান নহে, আবার ব্রিটেনেও থাকেন ইংলিশ, স্কটিশ, আইরিশ, – যাহাদের জাতীয়তা লিখিত হয় ব্রিটিশ । সুতরাং, বলিতে গেলে উভয় পরিচয়ই ভিন্ন ভিন্ন পরিসরে আপন । বাংলাদেশ কহিলে আপন পাড়া, আপন গৃহ মনে হয় – বাঙালি কহিলে আপনার ভাই, না-দেখা আত্মার জন মনে হয় ।

তবুও যদি প্রশ্ন আসিয়াই যায়, কোনটা লয়ে অধিক গর্ব করিবো? কহিব, তবুও সবুজ এই পাসপোর্ট-খানাই না বড্ড বেশি ভালো লাগিয়া থাকে, তবুও বাংলাতেই ভাব জানাইতে-জানিতে মন চায় ।

কথন – ১

বহু দিবস যাবৎ কলম লইয়া বসা হইতেছে না; কহিবেন তা হইবার কী আর যো আছে? আধুনিক যুগ কলমের যুগ নহে, ইহা চাবিতক্তা আর মূষিকের । আমিও উহাই কহিতেছি, কলম-কীবোর্ড কোন কিছু লইয়াই আর লিখা হয় নাই বহু দিন – প্রায় দুই মাস হইতে চলিল । আজিকে তাই কিছু এলোমেলো লেখা লিখিতে মন করিল এবং লিখিতে বসিলাম ।

সাধুবচন নামীয় এই খেরোখাতা বানাইবার পর, আমি কিছু সংক্ষিপ্ত কর্মে লিপ্ত হইয়াছিলাম; এরই মধ্যে সর্বশেষ রমজানের প্রারম্ভে হঠাৎই মনে হইলো, নামাজের সময় লইয়া কিছু কাজ করা যাইতে পারে। নামাজের ওয়াক্ত বছরের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভৌগলিক অবস্থানে বিবিধরূপ হয়; তবে কিছু নিয়ম মানিয়াই হয়। এই চিন্তা হইতেই ওয়াক্তস্কোপ বানাইতে বসি দু’সপ্তাহ পূর্বে। ভাবিয়াছিলাম শনি-রবির ছুটিতে বানাইয়া ফেলিব, কিন্তু চোখ বাবাজি উঠায় তা আর হয় নাই। ২৪ তারিখ রাত্রিতে কিছু কাজ করিতে শুরু করি এবং প্রতিদিন অফিস হইতে আসিয়া অতঃপর ঘন্টা দুয়েক বসিতে পারি। ঢাকা শহরের যাহা অবস্থা তাহাতে কোন কর্মেই সময় দিইবার উপায় রহে না । প্রত্যূষে ন’টার অফিস ধরিতে আরো সকাল সাড়ে সাতটায় রওনা হইতে হয়; ছ’টার অফিস শেষ করিয়া আসিতে আসিতে আটটা-নয়টা তো বাজিয়াই যায় । বাসে করিয়া আসিতে গেলে আরও বেশি, বরং হাঁটিয়া আসিলে উপকার হয় – স্বাস্থ্য আর সময় উভয়ই বাঁচে। তবে দশ-বারো সহস্র কদম হাঁটিতে কষ্ট হইয়া তো যায়ই বটে! যাইহোক একরকম কসরৎ করিয়া অতঃপর ৩০-৩১ তারিখে কিছু কাজ করিয়া ওয়াক্তস্কোপ বানাইয়া ফেলিলাম, ওখানে এখন বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন শহরের নামাজের ওয়ক্ত দেখা যাইবে, কেবল দক্ষিণ (ডান) পার্শ্ব হইতে নিজ দেশ আর শহরের নাম নির্বাচন করিতে হইবে, টাইমজোন খানা ঠিক করিতে হইবে । সাধারণত ইহা বাংলাদেশে প্রচলিত হিসাব মানিয়া ওয়াক্ত গণনা করিলেও, উত্তর (বাম) পার্শ্ব হইতে বিবিধ প্রণালী হইতে ১খানা বাছিয়া লওয়া যাইবে । বানাইয়া ইহা ওয়েবে দিলাম, কিছু লোক পছন্দও করিল বটে। এক দুজনের কাজে যদি বা আসেও তাতেও আমার আরাম হয়।

বঙ্গদেশে আমার বাস, বিচিত্র এই দেশ — একে তাহার রূপের তুলনা হয় না, তায় আবার দেশের মানুষও বিদিক; নানাবিধ কীর্তি কর্মে সারাদিন কাটিয়া যায় । এদেশবাসী সম্ভবত সবচেয়ে পারঙ্গম অপরের অনুপকার সাধনে, নাইলে কি আর প্রতিদিন সংবাদপত্রে পাঠ করি একজন আরেকজনের নামে কুৎসা গাহিতেছে কিংবা শিক্ষক তাহার ছাত্রীদিগকে ভালোবাসার আধিক্যে বলপূর্বক উপস্ত্রী বানাইয়া ফেলিতেছে ?! কিংবা, নিরপরাধ কিশোরকে অপরাধী বানাইয়া দিতেছে আরাক্ষা-বাহিনী স্বয়ং? অথবা, ডাকাত মনে করিয়া শবে বরাত নামীয় দেশে ধর্মীয় আমেজে পালিত রাত্রিতেই বা কীহেতু কিছু তরুণ ছাত্রকে আমরা গণপিটুনি দিইয়া শবে-মউৎ বানাইয়ে দিতেছি?

আমরা আবার খুব হুজুগ প্রবণ-ও বটে… একটা ঘটনা ঘটিলে আমরা তাহা লইয়া খুব উল্লম্ফন করি; কিছুকাল পর আরেক ঘটনা মিডিয়া আমাদিগকে পান করায়… আমরা সেই সুরাপাত্রে চুমুক দিয়া পূর্বের ঘটনা ভুলিয়া যাই। একদিন দেশ দশ ও কোটি মানুষের কিছু ঘটনা নিয়া আমরা হাপিত্যেশ করি, দেশপ্রেম – বিশ্বচিন্তন কিংবা সবুজ ধরিত্রীর প্রেরণায় আন্দোলন করিতে করিতেই দুইদিন পরে যখন দেখি একজন বিশেষ মানুষের উপর নির্যাতন হইতেছে, তখন আগের ব্যক্তি বা ঘটনা “মুড়ি খা” বলিয়া নতুন ঘটনা নিয়া লাফাইয়া পড়ি; ফলত পূর্বের ওই বিশেষ ঘটনায় আর জনতার মনসংযোগ থাকে না বিধায় সরকার কিংবা দায়ী কর্তৃপক্ষ যথেচ্ছভাবে ওই ঘটনা ধামাচাপা দিয়া দেয়; আমাদের হুদা আন্দোলন বেহুদা খরচের খাতায় পড়িয়া রয় । উত্তম! আমাদিগের তো এইরূপই করা সাজে; চিৎকার ম্যৎকারই আমাদিগের ‘বিধেয়’, ‘উদ্দেশ্য’ তো নিমিত্ত মাত্র ।

যাহাই হউক, এখন রমজান মাস চলিতেছে; মুসলমানগণ উক্ত মাসে সিয়াম সাধনা করিয়া এবং অধিক সালাত ও ইবাদতাদি করিয়া আল্লাহ্‌’র সান্নিধ্য লাভে উদ্যত হয়; বিশেষত ইহা আমাদিগের আত্মিক শুদ্ধি ও ঈমানি পুনরোজ্জীবনের সুযোগ বলিয়া গণ্য হয় । তদুপরি এই মাস লইয়া আলোচনা সমালোচনা কম হয় না বৈকি । কেউ রোজা রাখিবার ফজিলত আর কেউবা না রাখার তরিকৎ বাৎলায়; কারো আলোচনা বেরিয়ে আসে ধর্মের অসারতা নিয়া, কেউবা অধর্মের নিন্দা করে এ মাসেই। যাবতীয় দ্বন্দ বিদ্বেষ কাজ করিতে থাকে ঠিক আপন গতিতেই । 😦 উপরন্তু, সবচাইতে আনন্দের বিষয় হইয়া দাঁড়ায়, বাজারগমণ… যেসব পণ্য দুমাস আগে ১শ টাকা দরে ক্রয় করিতে হইতো এই মাসে তাহা ন্যূনতম দুইশত টাকা মূল্যে ক্রয় করিবার সুযোগ পাই; বেশি মূল্যের জিনিস কিনিয়া নিজেকে ধনী ভাবিতে কাহার না ভালো লাগে? যাহই হৌক্‌, মাস শেষে আসিবে ঈদ —— আহাঃ, সেই আনন্দেই তাহা হইলে আপাতত লেখনি থামাইয়া আজিকে এখানেই ‘কথন’ সমাপ্ত করি!