গগণবিহারীর আকাশপি

একদা এক রাজ্যে বালুকাবেলা নামীয় শহরকে কেন্দ্র করিয়া এক বিশেষ ধরণের ব্যবসা গড়িয়া উঠিয়াছিল । এই ব্যবসা বিশ্বব্যাপিয়া তাহারা করিত এবং এরকম ব্যবসায়ী গোষ্ঠীও ছিল প্রচুর । তাহাদিগের মধ্যে বেশ নাম করিয়াছিল “মার্‌কশ্যপ”, “গুলতি” ও “মুখোচ্ছবি” নামীয় কতিপয় বেনিয়া গোষ্ঠী।

মার্‌কশ্যপ অতি দীর্ঘকাল ধরিয়া সকলের বাড়িঘর কেমনে চালনা (operate) করিবে তাহার জন্য সুবিধা করিয়া দিয়া আসিতেছিল, এছাড়াও তাহারা বিবিধ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, সংস্থা চালাইবার, অর্থাদির হিসাব রাখিবার, সুন্দরভাবে লিখিবার প্রদর্শন করাইবার জন্য বিবিধ উপকরণ তৈয়ার ও বিক্রয় করিয়া আসিয়াছিল । তাহার প্রায় সকল পণ্য অল্প বিস্তর মূল্যে জনতার নিকট বিক্রয় করিত । এসব করিয়া তাহারা যথেষ্ট নাম, যশ ও অর্থ কামায়াছিল।

গুলতি নামক এক যেই বেনিয়াগোষ্ঠী ছিল তাহাদিগের মূল কর্ম ছিল খোঁজাখুঁজি করিয়া দেওয়া । কাহার দোকানে কি রহিয়াছে, কোন স্থানে গেলে কি পাওয়া যাইবে – এইসব তথ্য যেমন গুলতি সবাইকে জানাইত তেমনি জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিভিন্ন কথা ও তথ্য খুঁজিয়া পাইতেও তাহারা সাহায্য করিত । তাহাদিগের আর ব্যবসা ছিল বিজ্ঞাপন প্রদান ও পুস্তক বিক্রয় । এর ছাড়া তাহারা সবার মধ্যে যোগাযোগ করাইবার বিভিন্ন ব্যবস্থাও করিত।

আর ছিল মুখোচ্ছবি । মার্‌কশ্যপের ও গুলতির চাইতেও অনেক অল্প বয়সের বেনিয়া গোষ্ঠী মুখোচ্ছবি — তাহাদিগের মূল ব্যবসা হইল লোকজনের বন্ধুসকলের হিসাব রাখা। কোন বন্ধু কি করিতেছে, কাহার কি অবস্থা ইত্যাদি মুখোচ্ছবি ব্যবহার করিয়া একে অপরকে জানাইতে পারিত — ছবি, লেখা ইত্যাদি প্রকাশ করিয়া, চিঠিপত্রাদি পাঠাইয়া।

মার্‌কশ্যপ, গুলতি ইহাদেরও পণ্য রহিয়াছে চিঠিপত্র পাঠাইবার, আলোচনা করিবার ইত্যাদি বিবিধ প্রকারের — একের ব্যবসার উন্নতি তাই কখনোবা অপরের ব্যবসার ক্ষতি করিত।

এইরূপ কতিপয় বেনিয়া গোষ্ঠীর বাহিরেও ছিল অনেক ছোট বড় বেনিয়া – যাহারা নানান রকম পণ্য সামগ্রী বানাইয়া প্রভূত নাম কামইতো । কিন্তু অবস্থা এমন হইয়াছিল যে, কিছুকাল অতিবাহিত হইলেই বৃহৎ বণিকগণ অপেক্ষাকৃত ছোট ব্যবসাসকল কিনিয়া লইয়া নিজ নিজ ব্যবসার প্রবৃদ্ধি ঘটাইতো।
এইরূপ আরো একবার ঘটিল যখন, গগণবিহারী সাহেব তাহার বিখ্যাত “আকাশপি” নামক ব্যবসাখানা বিক্রয় করিয়া দিতে উদ্যত হইলো।

গগণবিহারী সাহেবের আকাশপি একখানা অতি জনপ্রিয় বস্তু; ইহাতে নানাকিছু করা সম্ভব হইয়া থাকে, যেমন দূরের কাহারো সহিৎ কথা বলা, তাৎক্ষণিক পত্রাদি প্রেরণ এমনকি বহুদূরে যে বা যাহারা বসিয়া রহিয়াছে তাহাদিগের দর্শন লাভও সম্ভবপর হইয়াছে । অকস্মাত গগণবিহারী সাহেব যেইক্ষণে আকশপি বিক্রয় করিতে চাহিল তৎক্ষণাত আসিয়াই তাহা কিনিতে চাহিল দুর্দান্ত প্রতাপশালী গুল্‌তি – বিবিধজনের ব্যবসা কিনিয়া লওয়া যাহার বিশেষ শখ এবং মুখোচ্ছবি – সর্বমানবেরে একই সূত্রে বাঁধিয়া যোগাযোগ করাইয়া দেওয়া যাহার আপ্তবাক্য । এই দুইজনেই চারি নিযুত আস্‌রফি করিয়া ক্রয়মূল্য কহিয়া কিনিবার চেষ্টা চালাইতেছিল । হঠাৎ করিয়াই মার্‌কশ্যপ ঘটনাস্থলে আসিল এবং ভাবিয়া দেখিল যে তাহারা যদি আকাশপি নামক জাদুকরি বস্তু পায় তাহা হইলে মার্‌কশ্যপের বিশেষ উপকার হয় । যেমন, তাহাদিগের ‘জীবন্ত’ নামীয় যে বিশেষ সেবা রহিয়াছে এবং বনেদিগোষ্ঠিদিগকে তাহার যেসব পণ্যসেবা দিয়া থাকে, তাহার সহিৎ এই আকাশপির গুণাগুণ জুড়িয়া দিলে বেশ হয় । ইহা ছাড়া মার্‌কশ্যপের তৈয়ারি খেলিবার যন্ত্র গুননবাক্স ও নাতালের সহিৎ আকাশপি লাগাইয়া দিলে এইসকল পণ্যের ক্রেতাসংখ্যা বহুগুণ বাড়িবে । তাহাদিগের হাতে বহন করা যায় এমন কথা বলিবার যন্ত্র ‘বহমান জানালা’ তেও এই সুবিধা বিশেষ আকর্ষণ আনিবে । সুতরাং মার্‌কশ্যপ অতি উচ্চমূল্য – সাড়ে আষ্ট নিযুত আস্‌রফি দিয়া আকাশপি কিনিয়া লইলো।

অবশেষে দেখা যাইতেছে, কিনিতে না পারিলেও লাভ মুখোচ্ছবি’র-ও হইতেছে । মার্‌কশ্যপ মুখোচ্ছবি-কে বিশেষ স্নেহের দৃষ্টিতে দেখিয়া থাকে এবং তাহারা কারবারিতে অংশীদারও বটে । ফলতঃ দেখা যাইবে যে মুখোচ্ছবি-ও গগণবিহারীর আকাশপি হইতে সুবিধা প্রাপ্ত হইবে।

যাহা হাউক এই বালুকাবেলা নগরের কান্ডকীর্তী বুঝা বড়ই দায় । কি হইতে যে কি হয় আমাদিগের ন্যায় সাধারণ মানুষ যাহারা – তাহাদিগের নাতিদীর্ঘ এন্টিনায় তাহা স্পর্শ করিতে অক্ষম॥

বিঃদ্রঃ এই গল্পের সকল চরিত্র ও স্থান কাল্পনিক; বিশেষ করিয়া আকাশপি, মার্‌কশ্যপ, গুলতি, মুখোচ্ছবি কোনক্রমেই Skype, Microsoft, Google বা Facebook নহে, বালুকাবেলা-ও সিলিকন ভ্যালী নহে। কেহ কষ্ট কল্পনা করিয়া বাস্তব জগতের কোন কিছুর সহিৎ মিল বা সম্পর্ক খুঁজিয়া পাইলে সর্ব-দোষ তাহার

Advertisements

Published by

nafSadh

I study theory and applications of computing sciences.

6 thoughts on “গগণবিহারীর আকাশপি”

  1. কহ কী মমিন? এত কিছু ঘটিলো উপরে উপরে (তলে তলে)?
    এন্টেনা সর্বদা প্রসারিত রাখা এই নাদানের কর্ম নহে। যা কিছু উপর দিয়া চলিয়া যায়, তাহার কিছু কিছু তুমি যদি এইখানে এইরুপে নামাইয়া রাখ, তো বেশ হয়, উপকৃতও হই
    বেশ!

    Like

    1. ইহা একটি কাল্পনিক কাহিনী, বাস্তবের সহিত ইহার কোন যোগ নাই।

      Like

  2. শব্দচাপ দিয়ে ভালই ব্যবসার কাহিনী লিখলি।
    তুইও কি দিচ্ছিস নাকি নতুন বেনিয়া দোকান?

    Like

    1. আমি আর কি দিইবো দোকান, সে সাধ্য কি আর মোর আছে?

      Like

    1. আমি আকাশপি কিনিতে পারি নাই, তাহার পূর্বেই বালমারের পুত্র বালমার আসিয়া সাড়ে আট টাকা দিয়া কিনিয়া লইয়াছে।

      Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s